বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ

বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ : বন্য প্রাণীদের বেঁচে থাকার অধিকার।

বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ: বন্য প্রাণীদের বেঁচে থাকার অধিকার। উত্তরাখণ্ডের আদালত বন্যপ্রাণী নিয়ে একটি অনন্য এবং গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত দিয়েছে। আদালত এসব প্রাণীকে ব্যক্তির মর্যাদা দিয়ে মানুষকে অভিভাবক হিসেবে ঘোষণা করেছেন। 

 

আদালতের উদ্দেশ্য হল মানুষ যেন নিজের স্বার্থে পশুদের সাথে বাড়াবাড়ি না করে। আধুনিকতার অন্ধ দৌড় এবং মানুষের ক্রমবর্ধমান পদক্ষেপ উন্নয়নের নামে বন কেটে, নদী শুকিয়ে, পাহাড়ের জমি, বহু উদ্ভিদ ও প্রাণীকে চিরতরে ধ্বংস করেছে।

 

ভারতের বিভিন্ন শহরে, গ্রামে বা বিভিন্ন জায়গায় চিতাবাঘ, বাঘ, হাতি এবং মানুষের মতো প্রাণীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা সবসময়ই দৃশ্যমান। খাবারের সন্ধানে বনের সীমানা পেরিয়ে চিতাবাঘ বা অন্যান্য প্রাণীদের পিটিয়ে বা গুলি করে মেরে ফেলার খবর আমরা প্রায়ই পড়ি। 

 

এই ঘটনাগুলি দেখায় যে মানুষ এবং পশুদের মধ্যে দ্বন্দ্ব আরও খারাপ অবস্থায় পৌঁছেছে। বন্য প্রাণীদের উপর বারবার রক্তক্ষয়ী আক্রমণ দেখায় যে মানুষ পশুদের দ্বারা সৃষ্ট বিপদ সম্পর্কে আরও সতর্ক হয়ে উঠছে। কিন্তু, সত্য হল মানুষ নিজেই এই সমস্যার মূল। বন উজাড় করে পরিবেশ ধ্বংসের যে দাওয়াত দিয়েছি, এটাই এই সমস্যা তৈরি করেছে। 

 

মানুষ সমস্যার এই আসল কারণকে উপেক্ষা করছে। উন্নয়নের নামে মানুষ যেমন বনের সীমানায় অনুপ্রবেশ শুরু করেছে, তেমনি পরিবর্তন এসেছে বন্য প্রাণী শিকারের ক্ষেত্রেও। প্রাণীদেরও বাঁচতে হলে পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নিতে হয়। এ কারণে খাদ্যের সন্ধানে এসব প্রাণী মানুষের বসতির দিকে আসে।

 

আমরা বাঘের সংখ্যা বাড়াতে সফল হয়েছি এই সত্যটি উদযাপন করি। আমরা সরকারি ও সামাজিক পর্যায়ে কয়েক কোটি গাছ লাগিয়ে বনায়ন করেছি বলে দাবি করছি। কিন্তু, দিন দিন বন্য প্রাণী মানব জাতিকে হত্যা করা হচ্ছে। উন্নয়নের নামে বন উজাড় করা হচ্ছে। এমতাবস্থায় আমরা যখন কোনো বন্য প্রাণী হত্যা করি, তখন বন ও বন্যপ্রাণীর কল্যাণে মানুষের দাবি ফাঁপা, প্রতারণা প্রমাণিত হয়।

 

বন, বনজ সম্পদ ও বন্যপ্রাণী ছাড়া মানুষের জীবন নিশ্চিত ও টিকিয়ে রাখা যায় না। এই বিষয়টি আমাদের সমাজের বিভিন্ন স্তরের মহান ব্যক্তিরা বারবার পুনরাবৃত্তি করেছেন। তবুও জ্ঞাত বা অজ্ঞাতসারে আমরা উন্নয়নের দৌড়ে এ বিষয়টি উপেক্ষা করে চলেছি। এই জিনিসটি আমাদের ভারতীয় ঐতিহ্যে বহু শতাব্দী ধরে গেঁথে আছে। আমাদের ভারতীয় সংস্কৃতিতে কী আছে, এর বাইরে কী আমাদের মানব জাতির স্বার্থে, তা ভুলে গিয়ে আজ আমরা নিজের পায়ে কুড়াল মারার কাজ করছি।

 

আমরা যখন বন ও বন্য প্রাণীর সুরক্ষা, তাদের প্রচারের মতো বিষয়গুলোকে আমাদের সামাজিক জীবনে দায়িত্ব হিসেবে তুলে ধরার চেষ্টা করি, তখনই কেবল মানুষই প্রকৃত অর্থে তার শ্রেষ্ঠত্বের দিকে অগ্রসর হতে দেখা যাবে। ভারতীয়রা হাজার হাজার বছর ধরে তাদের জীবনধারায় বনের ব্যবহারকে মানিয়ে নিয়েছে। এতে আদিবাসীদের বড় অবদান রয়েছে। 

 

কিন্তু গ্রাম যখন নগরায়ণ হতে শুরু করে, তখন নিমিষেই কেটে যায় হাজার হাজার গাছ। চিপকো আন্দোলনের সময় ২০০-৩০০ গাছ কাটার পরও সেই কাটা বন্ধের আন্দোলন হয়েছিল। এ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। কিন্তু এখন কোনো প্রকল্পের জন্য হাজার হাজার গাছ কাটা হয়, তারপরও কেউ জানে না এমন কিছুর কথা যা মানবজাতির ধ্বংসের কারণ। এই বিষয়ে কোনও জাতীয় নীতি না থাকায়, প্রতিটি রাজ্যই বিষয়টিকে নিজস্ব উপায়ে মোকাবেলা করার চেষ্টা করে।

 

আজ প্রয়োজন উন্নয়নের প্রকৃত অর্থ বোঝা। আমরা যখন বসুন্ধরাকে একটি পরিবার মনে করি, তখন কেবল মানুষই সেই পরিবারে অন্তর্ভুক্ত হয় না। বরং পশু-পাখি জগৎ, বন-জঙ্গলকেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।একটি পরিবারের সদস্য হিসাবে, আমাদের প্রত্যেকের সমান বেঁচে থাকার অধিকারকে সম্মান করা উচিত।

 

মানুষের জীবনের সুবিধার্থে পরিবেশ সম্পর্কিত বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের বেঁচে থাকার অধিকার কেড়ে নেওয়ার অধিকার মানবজাতির নেই। প্রাণীদের বেঁচে থাকার অধিকার, বনের অধিকার মানুষের বেঁচে থাকার অধিকারকে সরাসরি চ্যালেঞ্জ করেনি। 

 

পশুদের আজ তাদের খাদ্যের সন্ধানের জন্য বন অঞ্চল থেকে বেরিয়ে আসতে হয়, তাই এটি বিশ্বাস করা উচিত যে এই বন্য প্রাণীরা একভাবে মানব জাতির দ্বারা তাদের শোষণকে অস্বীকার করছে। যখন প্রাকৃতিক বন্যা, খরা, পানি সমস্যার মতো নানা দুর্যোগ দেখা দেয়, তখনও প্রকৃতি শুধু মানুষের দ্বারা বন ধ্বংসের মতো তার শোষণ নিষিদ্ধ করে।

 

মানবজাতির উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্য উন্নয়নের দিকে নিরন্তর অগ্রসর হতে হবে। স্মার্ট সিটি গড়তে হবে।রেলপথ, সড়ক নির্মাণ করতে হবে। আমাদের জীবনকে সহজলভ্য করতে উন্নয়নের সাথে সম্পর্কিত সবকিছু ব্যবহার করতে হবে। 

 

এ বিষয়ে কথা বলার সময় আমাদের একটি কথা মাথায় রাখা উচিত যে, আমাদের জীবনকে সহজলভ্য করতে গিয়ে প্রাণীজগত ও বনজ সম্পদের সহাবস্থানের অধিকারের কথা মাথায় রাখতে হবে। এটি আমাদের ‘স্বাস্থ্য উন্নয়ন’ ধারণা। যখন প্রকৃতির সঙ্গে যুক্ত বন্যপ্রাণী ও বনের সহ-জীবনের চিন্তাভাবনা আসবে, তখনই তাকে প্রকৃত অর্থে সুস্থ বিকাশ বলা হবে। 

 

নইলে বাঘের সংখ্যা বাড়ানোর দাবি, কোটি কোটি চারা রোপণ, সরকার বা সমাজব্যবস্থা এই ধরনের মিথ্যা দাবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ফরোয়ার্ড করে এবং আমরা সবাই মিথ্যা বলে আখ্যায়িত হব। পরিবেশের প্রতি আমাদের ভুল মনোভাবের কারণে, আমরা ঢোল পিটিয়ে কুমিরের চোখের জল ফেলি। এই মনোভাব কি কখনো বদলাবে? বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ

 

আমাদের পাশে থাকতে একটি লাইক দিয়ে রাখুন।-ধন্যবাদ